1. admin@bengalexclusive.com : admin :
  2. bibhas@sudhankarwinner.com : BIBHAS DUTTA : BIBHAS DUTTA
  3. sasanka@bengalexclusive.com : Sasanka Paul : Sasanka Paul
মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
উচ্ছেদ করতে চায় স্থানীয় দাদারা!বিপাকে সিউড়ির তালতলা পতিতা পল্লীর পতিতারা যোগী রাজ্যে একশো বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণ!তিনবছর পর অপরাধীকে ২৫০০০টাকা জরিমানা কোর্টের ইকবাল পুর হত্যা কাণ্ডে নতুন মোড়!উঠে আসলো বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কর কথাও এবার গবেষণায় উঠে আসলো হুইস্কি খাবার হাজারো সুফল! জেনে নিন কি কি স্ত্রীর ধর্ষণের প্রতিশোধ নিতে বন্দুকের গুলি কিনতে গিয়ে ধৃত স্বামী! এবার ফেলুদার ফেসবুক একাউন্টেই কুরুচিকর পোস্ট! রাজ্য বিজেপিতে আবারও চাগাড় দিচ্ছে গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব!ঝক্কি পোহাতে হলো কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বিজেপিতে গিয়ে নিস্তার নেই মুকুলের!আবারও সম্পত্তির হিসেব চাইলো ই ডি প্রশান্ত কিশোরের সামনে এবার বিজেপি আই টি সেলের প্রধান অমিত মালব্য মৃত্যুর বারো ঘন্টা আগে সৌমিত্রর মৃত্যুর খবর প্রচার করে অভদ্রতার নজির গড়লেন অনুপম হাজরা!

Google Ads

একুশের আগেই তৃণমূলকে আরো ধারালো করতে প্রশান্ত কিশোরের নতুন ট্যাকটিকস

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৮ বার পঠিত

সামনেই নির্বাচন। তাই নতুন জনসংযোগ মাধ্যমে এ সড়গড় হওয়ার জন্য ইন্টারভিউ দিতে হচ্ছে রাজ্য শাসক দলের মন্ত্রী, বিধায়ক ও সাংসদ দের প্রায় সকলকেই।
কেমন ইন্টারভিউ, আর কেনই বা ইন্টারভিউ।
দেখা যাচ্ছে, প্রায় অর্ধশতক ধরে রাজনীতি করে আসা নেতা কেও টিম পিকে অর্থাৎ প্রশান্ত কিশোরের প্রতিনিধির সামনে বন্ধ ঘরে ইন্টারভিউ দিতে হচ্ছে।
গত এক বছর ধরে প্রশান্ত কিশোর তৃণমূল কংগ্রেস এর রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক পরামর্শদাতা হিসেবে কাজ করে আসছে।
এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছে এবং সবেচেয়ে বেশি গুরুত্ব ও পেয়েছে, তা হলো সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার।
দলের এক শীর্ষ নেতার কথায়, ‘সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার তো ছিলোই কিন্তু তা আরো ভালোভাবে কাজে লাগতে হবে তার জন্য আইপ্যাক পরামর্শ দিচ্ছে।
আর দল ও দলের শাখা সংগঠনের বেশিরভাগ জনপ্রতিনিধিই এই পরামর্শ নিয়েই চলছেন।

গত মার্চ মাস থেকে চালু হওয়া দুটি পেজ,’ বাংলার গর্ব মমতা’, আর ‘দিদি কে বলো’.. মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর রাজনীতি ও প্রশাসনের মুখ হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়ায় কেন্দ্রীয়ভাবে চলছে।
গত মার্চ মাসে শুরু ‘বাংলার গর্ব মমতা’ এই পেজ এর ফেসবুকে ফলোয়ার ২৪ লক্ষ,আর ইনস্টাগ্রাম ও টুইটার হ্যান্ডেল এ ফলোয়ার ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে বলে তৃণমূলের দাবি।
এই পথ অনুসরণ করে, বিধানসভা, ব্লক সহ আঞ্চলিক স্তরেও এই পেজ চালু করা হয়েছে।
আইপ্যাক এর তত্ত্বাবধানে ২৯৪ টি বিধানসভা ও ২৩ টি জেলাতেও এই পেজ গুলো চলছে।
ইউটিউবেও পাওয়া যাচ্ছে তৃণমূল দলের কাজের নমুনা ইত্যাদি। চ্যানেলের নাম ‘বাংলার গর্ব মমতা’।

‘দিদিকে বলো’ পেজ টি শুরু হয়েছে গতবছর জুলাইমাসে। ফেসবুকে ফলোয়ার ৫ লক্ষ প্রায়।

মূলত সরকার ও দলের কাজকর্ম নিয়েই এই দুটি পেজ সাজাচ্ছে আইপ্যাক এর ডিজিটাল টিম।
রাজ্যস্তরে কমপক্ষে ১৫ জনের একটা টিম কাজ করছে।জেলায় তাদের নির্দেশ কায়েম রাখতে দলের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের সংযোগ সাধনে দায়িত্বপ্রাপ্ত রা রয়েছেন।

অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস এর মমতা ব্যানার্জি ও অভিষেক ব্যানার্জি এর নামে দুটো আলাদা পেজ রয়েছে। যাতে করে রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক কাজকর্মের প্রচার হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়।
মমতার নামে পেজ টা মুখ্যমন্ত্রী দপ্তর থেকে পরিচালিত হয় এবং অভিষেক ব্যানার্জির পেজ টা তার নিজের দপ্তর থেকেই পরিচালিত হয়।

দলের মহাসচিব পার্থবাবু বলেন, ” সোশ্যাল মিডিয়া কে যেভাবে মিথ্যা ও অপপ্রচারের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে তার মোকাবিলায় সত্য তুলে ধরতে আমরাও নিজেদের পরিকল্পনা মতো কাজ করছি”।

রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও’ব্রায়েন এর কথায়, “দলের কড়া নির্দেশ আছে কোনোভাবে ভুয়ো ছবি আর ঘৃণা সৃষ্টিকারী কোনো বক্তব্য ছড়ানো যাবেনা।
বিজেপির আইটি সেলের সাথে আমাদের এটাই পার্থক্য। আমরা বুথ লেভেল অবধি ঘৃণা যাতে না ছড়ায় তার জন্য কাজ করছি।”

ডেরেক এর দাবী, তাদের দল বিজেপির মতো অর্থবান নয়, তাই দলে একটা পরিবারের মতো কাজ করছে। দলের নেতা সহ নেতাদের স্বামী, স্ত্রী, সন্তান সবাই মিলে নানা বিষয়ে দলের বক্তব্য তুলে ধরে।

বিজেপির ভার্চুয়াল সমাবেশের পর, একুশে জুলাই উপলক্ষে তৃণমূলও একটি ভার্চুয়াল সমাবেশ করে।
দুটি সভাতেই দুই দলের নেতা থেকে শুরু করে দলের এর নেতা কর্মীরা ফেসবুকে প্রচার চালান।
দুটো সভার বিশ্লেষণের পর ছাত্রসংগঠনের প্রতিষ্ঠাদিবসে কৌশল বদল করে তৃণমূল।
মুখ্যমন্ত্রী’র বক্তৃতা একেবারে তৃণমূল স্তর অবধি পৌছে দেওয়ার সাথে দর্শক সংখ্যার রেকর্ড রাখতে দলের কোন অ্যাকাউন্ট থেকে কিভাবে শেয়ার করা হবে সেটা অবধি আগে থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়।

বক্তৃতার সময় কে কীভাবে কমেন্ট করবে তাও আগে থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে দলের তরফ থেকে।

জনপ্রতিনিধি দের ফেসবুকে পোস্টের বিষয় ও ঠিক করে দেয় মাঝে মাঝে তৃণমূলের এই আইটি সেল।
নিজের পেজ এ ভেসে ওঠা অনেক তথ্যই অনেক পরে জানতে পারেন সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধি।
আইটি সেলের টিম আগে থেকে কন্টেন্ট পাঠিয়ে দেয় ওই প্রতিনিধির তরফে দায়িত্বে থাকা কর্মী কে।
তারা তা পোস্ট করে।
এক বিধায়কের কথায়, “বহুসময় আইপ্যাক বিষয় তৈরি করে পাঠিয়ে দেয় পোস্ট করার জন্য।
তবে সরাসরি আমরাও নিজের মতো পোস্ট করতে পারি। তাতে কোনো বাধা নেই।”

প্রতিবেদনে-জাহেদ আলী

Google Ads

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর

Google Ads

© All rights reserved © 2020 bengalexclusive.com
Theme Customized By BreakingNews