1. admin@bengalexclusive.com : admin :
  2. bibhas@sudhankarwinner.com : BIBHAS DUTTA : BIBHAS DUTTA
  3. sasanka@bengalexclusive.com : Sasanka Paul : Sasanka Paul
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
উচ্ছেদ করতে চায় স্থানীয় দাদারা!বিপাকে সিউড়ির তালতলা পতিতা পল্লীর পতিতারা যোগী রাজ্যে একশো বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণ!তিনবছর পর অপরাধীকে ২৫০০০টাকা জরিমানা কোর্টের ইকবাল পুর হত্যা কাণ্ডে নতুন মোড়!উঠে আসলো বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কর কথাও এবার গবেষণায় উঠে আসলো হুইস্কি খাবার হাজারো সুফল! জেনে নিন কি কি স্ত্রীর ধর্ষণের প্রতিশোধ নিতে বন্দুকের গুলি কিনতে গিয়ে ধৃত স্বামী! এবার ফেলুদার ফেসবুক একাউন্টেই কুরুচিকর পোস্ট! রাজ্য বিজেপিতে আবারও চাগাড় দিচ্ছে গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব!ঝক্কি পোহাতে হলো কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বিজেপিতে গিয়ে নিস্তার নেই মুকুলের!আবারও সম্পত্তির হিসেব চাইলো ই ডি প্রশান্ত কিশোরের সামনে এবার বিজেপি আই টি সেলের প্রধান অমিত মালব্য মৃত্যুর বারো ঘন্টা আগে সৌমিত্রর মৃত্যুর খবর প্রচার করে অভদ্রতার নজির গড়লেন অনুপম হাজরা!

Google Ads

অতিমারী সংকটকালে নজির সৃষ্টি করল চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ কারখানা

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০২০
  • ৭১ বার পঠিত

অরণ্যাভ দেবনাথ: দেশজুড়ে করােনা সংক্রমণের বৃদ্ধি উর্দ্ধমুখী। একের পর এক আক্রান্ত হচ্ছেন রেলেকর্মীরাও। কিন্তু অতি সংকটকালে একশো শতাংশ কর্মীকে কাজে লাগিয়ে সফলতার ইতিহাস রচনা করল চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস। কয়েকমাসের মধ্যে সংস্থা তৈরি করে ফেলেছে ৫১টি বিদ্যুৎচালিত অত্যাধুনিক রেল ইঞ্জিন।

‘ইন্ট্রিগ্রেটেড গেট বাইপােলার টেকনােলজি’ ও ‘থ্রি ফেজ টেকনোলজি এই নয়া ইঞ্জিনে ব্যাবহার করা হয়েছে। প্রতি মাসে গড়ে ২৫ হাজার ভোল্টের এমন চল্লিশটি ইঞ্জিন তৈরি হয় চিত্তরঞ্জনে রেলের কারখানায়।

লকডাউনে উৎপাদন বন্ধ থাকায় চলতি অর্থবর্ষের লক্ষ্যমাত্রা ৩৯০টি ইঞ্জিন উৎপাদন নিয়ে বেশ চিন্তায় ছিল রেল কর্তৃপক্ষ। তবে দেড়মাসে ৫১টি ইঞ্জিন উৎপাদন করে আশার আলো দেখতে পেয়েছে। সিএলডব্লুর জনসংযোগ আধিকারিক মন্তার সিং বলেন, ‘দেড় মাস যে পরিমাণে ইঞ্জিন উৎপাদন হয়েছে তাতে আমরা লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে বলে।’

রেল সূত্রে খবর কারখানায় উৎপাদনের লক্ষ্য পূরণে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হয়ে উঠেছে অতিমারী করোনা ভাইরাস । সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন ঘােষণা হওয়ায় বেশ কয়েকদিন কাজ বন্ধ ছিল। গত জুন মাস থেকে কাজ শুরু হলেও উৎপাদনের ক্ষেত্রে জরুরি কাঁচামাল জোগাড় করা কঠিন হয়ে পড়েছিল। কারণ, সে সব মাল সড়ক পথে কারখানায় আসে। তবে এই কঠিন পরিস্থিতিতেও একশাে শতাংশ কর্মী সক্রিয়তা দেখানােয় এই সফলতা হাসিল করা গিয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ মনে করেছে। বর্ধমানের মতাে করোনা আক্রান্ত জেলায় একশাে শতাংশ কর্মীকে কাজে লাগানােয় তেমন সমস্যা হয়নি বলে দাবি করেছেন মন্তক সিং। তিনি আরোও জানান, তিনটি শিফটের যায়গায় দুটো শিফটে সব কর্মী কাজ করলেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মতাে ব্যবস্থা রয়েছে। ফলে সেই অর্থে কর্মীদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াতে পারেনি। এপর্যন্ত কারখানায় মাত্র চারজন কর্মী করােনায আক্রান্ত হয়েছেন। দুর্গাপুর কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসার পর সেরে উঠে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন তারা। কারখানায় কোনও আতঙ্ক নেই। ফলে সংক্রমনের আতঙ্ক দূরে রেখে সফলতার শিখর ছুঁতে চলেছে সিএলডব্লিউ।

Google Ads

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর

Google Ads

© All rights reserved © 2020 bengalexclusive.com
Theme Customized By BreakingNews