1. admin@bengalexclusive.com : admin :
  2. bibhas@sudhankarwinner.com : BIBHAS DUTTA : BIBHAS DUTTA
  3. sasanka@bengalexclusive.com : Sasanka Paul : Sasanka Paul
রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০১:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গৌরাঙ্গ সেতু টোল প্লাজায় বেআইনি ভাবে অত্যাধিক বেশি টোল ট্যাক্স নেবার অভিযোগ!নীরব প্রশাসন দিয়েগোর হঠাৎ মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ বিশ্ব উচ্ছেদ করতে চায় স্থানীয় দাদারা!বিপাকে সিউড়ির তালতলা পতিতা পল্লীর পতিতারা যোগী রাজ্যে একশো বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণ!তিনবছর পর অপরাধীকে ২৫০০০টাকা জরিমানা কোর্টের ইকবাল পুর হত্যা কাণ্ডে নতুন মোড়!উঠে আসলো বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কর কথাও এবার গবেষণায় উঠে আসলো হুইস্কি খাবার হাজারো সুফল! জেনে নিন কি কি স্ত্রীর ধর্ষণের প্রতিশোধ নিতে বন্দুকের গুলি কিনতে গিয়ে ধৃত স্বামী! এবার ফেলুদার ফেসবুক একাউন্টেই কুরুচিকর পোস্ট! রাজ্য বিজেপিতে আবারও চাগাড় দিচ্ছে গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব!ঝক্কি পোহাতে হলো কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বিজেপিতে গিয়ে নিস্তার নেই মুকুলের!আবারও সম্পত্তির হিসেব চাইলো ই ডি

Google Ads

রোজ খেতে না পেয়ে তেরো মাসের বাচ্চার বাড়েনি ওজন!শুকিয়ে গিয়েছে অন্যরাও,অসহায় মায়ের আকুতি শুনলো দেশ

  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৬ বার পঠিত

ভারতের দারিদ্রতার সমীকরণটা এতটাই কঠিন যে সেটা দেখলে শিউরে উঠবেন সকলেই। এরপর মহামারীর সংকট বিশ্ব পুঁজির সংকটের মতোই বিশাল হয়ে দেখা দিয়েছে। এরকমই এক অসহায় দরিদ্র পরিবারের আকুতি শুনলো গোটা দেশ।তিনবছরের উমেশ , ওজন ৮ কেজি , এই হাড়জিরেজিরে শরীরটা দেখলেই আতঙ্ক লাগছে। উচ্চতাও অনেক কম , এই চরম অপুষ্টির কারন দেশজুড়ে চলতে থাকা লকডাউন।
এই লকডাউনে বন্ধ স্কুল গুলি, ফলে বন্ধ হয়েছে মিড-ডে মিল। সেই খাবারের বিকল্প খাবারও বাড়িতে নেই , গোটা পরিবারের একবেলাও ভরপেট খাবার জোটে না।

লকডাউনের জেরে এই চেহারা শুধু উমেশের নয়, এই সমস্যা মহারাষ্ট্রের পালঘর জেলার তরলপদ এলাকার ঘরে ঘরে। এই এলাকার অধিকাংশ মানুষের জীবিকা থানে বা ভিওয়ান্ডি এসব জায়গায় মজুরের কাজ করা। এই এলাকার ৯০% মানুষই পরিযায়ী শ্রমিক। লকডাউনে বন্ধ উপার্জন , বাড়িতে জ্বলছে না উনুন। বাচ্চারা স্কুলে মিড-ডে মিল পেতো, সেটাও বন্ধ।

মুম্বই থেকে মাত্রে ১০ কিমি দুরে অবস্থিত এলাকার এই চিত্র সামনে এসেছে, করোনার জেরে যে সুদীর্ঘ লকডাউন তারফলে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় এই চিত্র সামনে এসেছে।

“এখন আমরা চারজন ঘরে আছি। আগে উমেশ আর ওর দাদা স্কুলে খেত দুপুরে। ওদের বাবা তো বাইরেই থাকত। এখন চারটে পেটই ঘরে। তার ওপর কোনও রোজগার নেই। ছেলেদের শরীরের অবস্থা দেখে আমার তো ভয় লাগছে। ওদের খাওয়াতে পারছি না কিছু।”—বলছিলেন উমেশের মা প্রমীলা ভাম্বরে।

করোনা সংক্রমনের শুরুর দিকে যখন লকডাউন শুরু হয় তখন ভিওয়ান্ডি থেকে গ্রামে ফিরে চলে এসেছিলেন অশোক ভাম্বরে, উমেশের বাবা ও প্রমীলার স্বামী। আসলে তখন কোনো উপায়ও ছিলো না , এতদিন ঘরবন্দি থাকার পর আনলক প্রক্রিয়া শুরু হলেও কাজ ফেরেনি তাঁদের।

অশোকগের কয়েকটা বাড়ির পাশেই থাকেন রূপেশ ও রূপালি। ওঁদের ১৩ মাসের যমজ বাচ্চার বৃদ্ধিও থমকে গেছে খেতে না পেয়ে। দুজনেরই ওজন ও উচ্চতা বয়সের তুলনায় অনেক কম। যেখানে অন্তত ৯ কেজি ওজন হওয়ার কথা বাচ্চাদের, সেখানে ওদের মাত্র ৫ কেজি করে ওজন। সামান্য শুকনো চিঁড়ে ছাড়া খাবার জুটছে না বললেই চলে।
রূপেশের মা জাই তরল বলেন, “পয়সা কোথায় খাব যে! বাচ্চাদের কী খাওয়াব! কোথাও কোনও সব্জি পেলে আমরা খাই না, বাচ্চাদের দিই। সব মিলিয়ে আট জন সদস্য পরিবারে। ছেলে আগে মিস্ত্রির কাজ করত। কয়েক মাস সব বন্ধ। আমার ছোট মেয়ে জুনকা ক্লাস সেভেনে পড়ে, ও আগে হোস্টেলে থাকত। পেট ভরে ভাত-ডাল-তরকারি খেতে পেত। সব বন্ধ এখন। আমরা একবেলা খেয়ে কোনও রকমে থাকি, বাচ্চাদের অন্তত দুবেলা কিছু খেতে দিই। জানি না কতদিন চলবে এভাবে।”

মহারাষ্ট্রের নারী এবং শিশু উন্নয়ন দফতর সুত্রের খবর পালাঘর এমনিতেই অপুষ্টির আঁতুরঘর। এখানের পরিবারগুলিতে অপুষ্টিকর বাচ্চা থাকার ঘটনা নতুন নয় , তবে সাম্প্রতিক লকডাউনে সেই ঘটনা আরো বেড়েছে। এপ্রিল মাস পর্যন্ত যেখানে ২৩৯৯টি অপুষ্ট শিশু ছিল, জুনে সে সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২৪৫৯। চরম অপুষ্ট শিশুর সংখ্যা এপ্রিল পর্যন্ত ছিল ৬০০, তা দুমাসে বেড়ে হয়েছে ৬৮২।

নারী ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী যশোমতী ঠাকুর বলেন, “আমরা সকলকে খাবার পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছি।” পালঘর এলাকায় কর্মরত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলি অবশ্য বলছে, সরকারি রেশন মোটেই যথেষ্ট নয়।
এলাকাবাসীদেরও অভিযোগ, এক এক জনের জন্য সরকার ২ কেজি শস্য দেয় মাসে।এক জন মানুষ অন্তত দুবেলা খেলে তার একমাসে ২ কেজি খাবারে কুলোনো সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছেন তাঁরা। ফলে খিদে ও অপুষ্টি থেকে মুক্তি নেই। খিদেয় কষ্ট পাওয়া শিশুদের খেতে দিতে পারছেন না মা! এর থেকে অসহায় দৃশ্য আর কিইই বা হতে পারে। তাদের মতো দেশের কোটি কোটি পরিবারও একি রকম অপুষ্টির শিকার।

প্রতিবেদনে- তানভি সুলতানা

Google Ads

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর

Google Ads

© All rights reserved © 2020 bengalexclusive.com
Theme Customized By BreakingNews